ফেসবুক প্রতিদিন

“এক বৃদ্ধার প্রতি দুই তরুণের ভালোবাসা। “

আজ ইফতারের পর তারাবির জন্য বের হয়েছি আমি ও আমার এক বন্ধু। আমি আমার বন্ধুকে বললাম যে আমার ফোনের একটি ব্যাকপাট কিনব চল নিউ মার্কেট এ যায়। যথারীতি যেই কথা সেই কাজ দুজন মিলে নিউ মার্কেট এ গেলাম। দুটো দোকান ঘুরার পর তিন নাম্বার দোকানে এসে আমি মোবাইল এর কোভার দেখছি। পিছন থেকে হঠাৎ আমার বন্ধু আমাকে ডাকছে, শোন তোর কাছে খুচরা টাকা আছে? আমি বললাম আছে। দিয়ে দেখি তার পাশে একজন বৃদ্ধ মহিলা। প্রায় আমার দাদুর বয়সী। দিয়ে আমার বন্ধু আমাকে বলে তাকে একটু ধোরতে হোটেল নিয়ে যাবে।আমি তাকে জিজ্ঞেস করি দাদীরে পাইলি কয়।

সে আমাকে বলে এই মহিলার ঘর বাড়ি নাই।রাস্তায় থাকে। রাতে মানুষের বারান্দায় ঘুমাই।গত কাল তার একটা ব্যাগ চোর চুরি করে নিয়ে গেছে। সেই ব্যাগে ছিল তার কোম্বল, ছাদর, প্লেট, গ্লাস ও কিছু টাকা।।সেই সময় আমার মনটা এতটা খারাপ হল যা ভাষায় প্রকাশ করার না।তারপর শুনি তিনি নাকি রোজা ছিলেন।ইফতারেও কিছু খেতে পারেনি।তার কাছে টাকা ছিলনা।এরপর আমি আর আমার বন্ধু তাকে মাটি থেকে তুলে একটা হোটেল এ নিয়ে যেতে চাই।কিন্তু বৃদ্ধ মহিলাটি বেশি হাটতে পারছি না।এরপর আমি আমার বন্ধুকে বললাম আমি দাদীকে নিয়ে বসছি এখানে তুই গিয়ে খাবার কিনে নিয়ে আই। আমার বন্ধু গেল খাবার কিনতে আমিও বৃদ্ধ মহিলাটির সাথে রাস্তায় বসে পড়লাম।এরপর আমি তাকে জিজ্ঞেস করি, দাদী আপনি থাকেন কোথায়? দাদী বলে আমার থাকার জায়গা নেই। আমি রাস্তায় মানুষের বারান্দায় ঘুমায়। এরপর আমি বলি কেন আপনার ছেলে মেয়ে নেই? সে বলে না।আমার দুটো বন ছিল তারা মারা গেছে।আমার বাবা ঘুমের মধ্যে হার্ড এর্টাক করে মারা গেছে, আমার মা মানুষের বাসায় কাজ করতে গিয়ে ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে মারা গেছে । আমি এখন এই পৃথিবীতে একাই।।এরমাঝে সবচেয়ে অবাক করা বিষয় হল এতক্ষন দাদী একাই বসে ছিল কিন্তু যখন আমার দাদীকে সাহায্য করছি কথা বলছি তখন রাস্তার অনেকে সাহায্যের জন্য এগিয়ে এসেছে .। ১০ মিনিটের ভিতর দাদীর টাকা বাটি ভর্তি হয়ে গেল।কিন্তু ঠিক কিছুক্ষণ আগেই এই মানুষ একা বসে ছিল তাকে কেও ভিক্ষাই দিচ্ছিলো না।এরপর আমার বন্ধু চলে আসলো। সে ভাত আর মাংস নিয়ে এসেছে।সাথে একটা প্লেট ও পানি।এরপর আমারা দুজন মিলে তাকে খাওয়ালাম।এবং সে কাল রোজা থাকবে দেখে কিছু খাবার রেখে দিন সেহেরির জন্য।আমার বন্ধু এছাড়াও তার জন্য আলাদা একটা আরএফএল এর প্লেট ও গ্লাস নিয়ে এসেছে। কারণ তার প্লেট আর গ্লাস চুরি হয়ে গেছে গতকাল।এরপর তার কাছ থেকে অনেক গল্প শুনলাম। সে বলল আমি যখন রাস্তায় ঘুমাই তখন হিরোহিন খোর আমার সব কিছু ছিন্তায় করে নেই ।। তাই আমার এখন রাস্তায় ঘুমাতে ভয় লাগে।আমি তাকে জিজ্ঞেস করি আজ তাহলে কোথায় ঘুমাবেন।সে বল রেল ষ্টেশন এ যাব।সেখানে আমার মত অনেক মানুষ আছে । এবং পুলিশ থাকে। এজন্য সেখানে চোর চুরি করতে পারে না।এই কথা শুনে আমি বললাম তাইলে দাদী আপনাকে একটা রিকশায় তুলে দি আপনি রেল ষ্টেশন এ চলে যান।এরপর আমি একটা রিকশা ডেকে ভাড়া ৫ টাকা বেশি দিয়ে রিকশাওয়ালাকে বললাম দাদীকে সাবধানে নিয়ে যাবেন এবং সাবধানে নামিয়ে দিবেন।এরপর আমি আ।আমার ফ্রেন্ড তাকে ধরে রিকশাই তুলে দিলাম।দাদীকে রিকশাই তুলে দেওয়ার পর দাদীর মুখের দিকে তাকিয়ে অন্তরে এক যে আত্নতৃপ্তি পেয়ে তা বলে বোঝানোর নয়।।

বিঃদ্রঃ একান্ত নিজের আবেগ থেকে পোস্টটি করেছি।কেউ কিছু মনে করবেন না

“তামিম আসিফের ওয়াল থেকে নেওয়া।”

Close